কুমিল্লা পাসপোর্ট অফিসের ডিডির বিরুদ্ধে সাক্ষ্য দেয়ায় সেবা গ্রহীতার বাড়ীতে গিয়ে হুমকি!

মোঃ সাফি।।
কুমিল্লায় পাসপোর্ট অফিসের উপ-পরিচালক (ডিডি) নুরুল হুদার বিরুদ্ধে সেবাগ্রহীতাকে মারধর ও সংবাদ সংগ্রহকালে সাংবাদিককে লাঞ্ছিত করার অভিযোগ তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত। আদালতের নির্দেশনায় পিবিআই কুমিল্লা সেবাগ্রহীতার থেকে একাধিকবার তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করেন।

এরই জেরে ওই সেবাগ্রহীতাকে প্রথমে মোবাইলে ও পরে পাসপোর্টের ডিডির ছোট ভাই পরিচয়ে আরও চারজনসহ সেবাগ্রহীতার বাড়িতে গিয়ে হুমকি দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে। রোববার (১৫ আগস্ট) এ ঘটনা ঘটে। ওই ভুক্তভোগীর নাম সাকিব।

সাকিব জানান, শনিবার ১৪ আগস্ট বিকেলে একটি নম্বর থেকে তাকে ৮ থেকে ১০ বার কল করা হয়। কল রিসিভ করলে আমার এলাকার নাম এবং ইউনিয়নের নাম জানতে চাওয়া হয়। পরে আবারও ওই নম্বর থেকে কল করায় রিসিভ করিনি। আজ ১৫ আগস্ট বেলা ১১টায় একটি প্রাইভেটকারে করে পাঁচজন আমাদের বাড়িতে যান। এসময় আমি কাজে থাকার কারণে আমার মায়ের সঙ্গে ওই পাঁচজন সিআইডি পরিচয়ে কথা বলেন।

সাকিব জানান, ওই লোকগুলো প্রথমে আমার বাড়িতে যান। বাড়িতে গিয়ে আমাকে না পেয়ে আমার মায়ের সঙ্গে কথা বলে যেখানে ইলেক্ট্রিকের কাজ করি সেখানে আসেন। আসার পর উনারা আমাকে বলেন, পাসপোর্ট অফিসে কি হয়েছিল? তখন আমি আগের কথাগুলো হুবহু বলি। বলার পর উনারা আমাকে বলেন, এ বিষয়টা নিয়ে যেন আর কাউকে কোনো কিছু না বলি এবং তাদের মধ্যে যেকোনো একজন আমাকে ফোন দিলে আমি যেন কুমিল্লা আদালতে গিয়ে একটি স্বাক্ষর দিয়ে চলে আসি। অন্যথায় আমাকে বিভিন্নভাবে হয়রানি হতে হবে। এসময় একজন নিজেকে কুমিল্লা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের ডিডি নুরুল হুদার আপন ছোট ভাই পরিচয় দেন। তিনি বলেন, তোমাকে তো আর মারা হয়নি। মেরেছে অন্য একজনকে। তোমার গায়ে এসে পড়েছে। সাকিব বলেন, আমি আতঙ্কে আছি। বিভিন্ন লোকজন দ্বারা আমাকে ফোন দেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে কুমিল্লা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের ডিডি নুরুল হুদার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

ঘটনার তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা পিবিআই কুমিল্লার পরিদর্শক মাহফুজ আলম বলেন, ১২ আগস্ট আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন পাঠানো হয়েছে। ১৪ আগস্ট তা আদালতে পৌঁছেছে বলে জানতে পেরেছি।

সাক্ষীকে হুমকির বিষয়ে তিনি বলেন, সেটা আমাদের দেখার বিষয় নয়। আপনি হোমনা থানায় কথা বলেন।

হোমনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, ভুক্তভোগী অভিযোগ দিলে হুমকিদাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জানা যায়, গত ১৮ এপ্রিল সোমবার দুপুর ১২টায় কুমিল্লায় পাসপোর্ট অফিসে সাকিবসহ তিন সেবাগ্রহীতাকে মারধর করার অভিযোগ ওঠে উপ-পরিচালক (ডিডি) নুরুল হুদার বিরুদ্ধে। এ ঘটনার বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহে গেলে দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার রিপোর্টার মো. সাফি ও রিপোর্টার্স ইউনিটির সদস্য ম্যাক নিউজের রাকিবুল রানাকে লাঞ্ছিত করা হয়। ভিডিও ধারণের সময় মোবাইল ছিনিয়ে নেওয়া হয়। এমন একটি ভিডিও সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এ ঘটনায় ১৮ এপ্রিল বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে তা আদালতের নজরে আসে।

২৬ এপ্রিল বিকেল ৫টায় বাংলানিউজে সংবাদ প্রকাশের বিষয়টিকে সামনে এনে কুমিল্লা ১ নম্বর আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. আব্বাস উদ্দিন স্বপ্রণোদিত হয়ে র‌্যাবকে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেন। পরবর্তীতে তদন্তের ভার পড়ে পিবিআইয়ের ওপর।

আদেশ কপিতে উল্লেখ করা হয় অনলাইন নিউজপোর্টাল বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমে ‘চেয়ারে বসায় তিন সেবাগ্রহীতাকে পেটালেন পাসপোর্টের ডিডি’ উল্লেখিত শিরোনামের সংবাদ আদালতের গোচরীভূত হয়েছে।

এই সংবাদ সত্যি হয়ে থাকলে অফিসের উপ-পরিচালক (ডিডি) নুরুল হুদা ফৌজদারী অপরাধ সংঘটন করেছেন। তাছাড়া সংবাদকর্মী রাকিবুল ইসলাম রানা ও সাফিকে সাংবাদিক হিসেবে তাদের দায়িত্ব পালনে বাধা দেওয়া ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেওয়াও আইনবিরোধী মর্মে আদালতের কাছে প্রতীয়মান হয়।

আদালতের নির্দেশনার পর ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী সেবাগ্রহীতা সাকিবকে ২৬ জুন ও ৯ আগস্ট জিজ্ঞাসাবাদ করে পিবিআই। পিবিআইয়ের জিজ্ঞাসাবাদের পর থেকেই সাকিবকে নানাভাবে হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

     আরো দেখুন:

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮  

You cannot copy content of this page