করোনা টেস্ট নিয়ে বিদেশগামীদের সঙ্গে প্রতারণা; কুমিল্লাসহ বিভিন্ন স্থান থেকে ১৪ জন গ্রেফতার

মোঃ জহিরুল হক বাবু।।
বিদেশগামী যাত্রীদের করোনা টেস্ট নেগেটিভ ফল প্রাপ্তির আশ্বাস দিয়ে কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া প্রতারক চক্রের ১৪ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব।

বুধবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে কুমিল্লা, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও রাজধানী ঢাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার ব্যক্তিদের কাছ থেকে প্রতাণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করা প্রায় সাত লাখ টাকা ও প্রতারণার কাজে ব্যবহৃত ১২০টি অবৈধ মোবাইল সিম, সিম এক্টিভেট করার ফিঙ্গারপ্রিন্ট মেশিন ও ৩২টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়েছে।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলো—মো. জসিম উদ্দিন (২২), মো. সুলতান মিয়া (১৯), মো. বেলাল হোসেন (৩১), মো. আবুল হোসেন (২৪), মো. আবদুল নূর (২১), মো. আলফাজ মিয়া (১৯), মো. শামিম (৩২), মো. আহাম্মদ হোসেন (১৯), মো. ইমরান উদ্দিন মিলন (১৯), মো. সবুজ মিয়া (২৭), মো. আব্দুর রশিদ (২৮), আব্দুল করিম চৌধুরী (৩২), মো. আঙ্গুর মিয়া (২৫) ও মো. আলমগীর হোসেন (২০)।

বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন সংবাদ সম্মেলন এ প্রতারক চক্রের গ্রেফতারের বিস্তারিত তথ্য জানান।করোনা টেস্ট নিয়ে বিদেশগামীদের সঙ্গে প্রতারণা, ১৪ জন গ্রেফতার

তিনি বলেন, ‘করোনাকালীন বিভিন্ন প্রতারক চক্র নানা প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছে। তারা বিভিন্ন সময়ে সাধারণ জনগণকে ঠকিয়েছে এবং ভূক্তভোগীদের করোনার ভুয়া রিপোর্ট ও এসএমএস দিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বিদেশগামী ব্যক্তিদের টার্গেট করে করোনা টেস্টের ভুয়া পজিটিভ রিপোর্টে কথা বলে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে আসছে কয়েকটি চক্র।’

তিনি বলেন, ‘বেশকিছু ভুক্তভোগী প্রতারক চক্রকে অর্থ প্রদানের পরও তাদের করোনা রিপোর্ট পজিটিভ আসার প্রেক্ষিতে তারা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রতারণা সম্পর্কে জানতে পারে। এ রকম অভিযোগের ভিত্তিতে র‌্যাবের পক্ষ থেকে গোয়েন্দা নজরদারি করা হয়। এরই ধারাবাহিকতায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গত বুধবার র‌্যাব-১১ এর একাধিক আভিযানিক দল প্রথমে কুমিল্লা জেলার কোতোয়ালি থানাধীন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে জসিম ও সুলতানকে গ্রেফতার করে। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগর ও রাজধানী ঢাকার সায়েদাবাদ, রমনা ও মতিঝিল এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রতারক চক্রের অপর সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়।’

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার বেলাল জানায়, ২০২১ সালের মার্চ মাসে সে মধ্যপ্রাচ্য যাওয়ার জন্য কুমিল্লার একটি হাসপাতালে করোনা টেস্ট করার পর অজ্ঞাত এক ব্যক্তি ওই হাসপাতালের ডাক্তার পরিচয় দিয়ে তার করোনা টেস্টের ফল পজিটিভ এসেছে বলে জানায়। ওই অজ্ঞাত ব্যক্তি ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে বেলালের করোনা টেস্টের ফল নেগেটিভ করার প্রতিশ্রুতি দিলে, সে চড়া মূল্যের টিকিট নষ্ট না করে ওই অজ্ঞাত ব্যক্তিকে বিশ্বাস করে ১০ হাজার টাকা দেয়। পরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে করোনা পজিটিভ ফল পাঠায়। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করলে অজ্ঞাত পরিচয়ধারী ওই ব্যক্তি হাসপাতালে কর্মরত কেউ নয় বলে জানালে বেলাল বুঝতে পারে সে প্রতারিত হয়েছে। পরে ওই বছরের এপ্রিল মাসে করোনা টেস্ট নেগেটিভ আসার পর বেলাল ওমান চলে যায়।করোনা টেস্ট নিয়ে বিদেশগামীদের সঙ্গে প্রতারণা, ১৪ জন গ্রেফতার

বেলাল জানায়, প্রতারিত হওয়ার পরপরই সে নিজেই প্রতারণা করে বিপুল অর্থ আয় করার একটি পরিকল্পনা করে। তবে তার বিদেশে যাওয়ার নির্ধারিত তারিখ চলে আসায় সে তার এই পরিকল্পনা তার ঘনিষ্ঠ বন্ধু সবুজকে জানায়। সবুজকে প্রতারণার একটি টিম তৈরি করে দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে অর্জিত টাকা সমানভাগে বন্টনের প্রতিশ্রুতি নিয়ে বিদেশে চলে যায়। সবুজ প্রতারণার কার্যক্রম চালিয়ে যেতে থাকে। তবে বেলালকে ভাগের অংশ ঠিকমতো দিতো না। এ কারণে চার মাস বিদেশে থেকে বেলাল আবার দেশে চলে আসে। এরপর সে জসিম নামে আরেক বন্ধুকে সঙ্গে নিয়ে করোনা টেস্টের ফল নেগেটিভ করে দেওয়া নিয়ে প্রতারণা শুরু করে।
র‌্যাবের কর্মকর্তারা জানান, বেলাল দেশে কয়েক মাস প্রতারণার কাজ করে বিদেশে চলে যেত। আবার বিদেশে কয়েক মাস থেকে দেশে চলে আসতো। বেলাল, সবুজ ও জসিম ৪-৫ বছর আগে চট্টগ্রামে একসঙ্গে ভ্রাম্যমাণ ব্যবসা করতো।

র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, প্রতারণার চক্রের সদস্যদের একটি গ্রুপ প্রথমে বিদেশগামী ব্যক্তিদের মোবাইল নাম্বার সংগ্রহ করতো। তারপর আরেক গ্রুপ সেসব নাম্বারে ফোন করে করোনা পজিটিভ এসেছে জানিয়ে, নেগেটিভ করে দেওয়ার নামে অর্থ নিত। বিদেশগামী যাত্রীরাও টিকিট ক্যানসেল হওয়ার ভয়ে প্রতারকদের চাহিদা মতো অর্থ দিয়ে দিতো।

জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা জানিয়েছে, চক্রের সদস্য আবুল হোসেন নারায়ণগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলায়; আব্দুর নূর নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকা জেলায়; আহাম্মেদ হোসেন চট্টগ্রাম ও নারায়ণগঞ্জ জেলায়, আব্দুর রশিদ রাজধানী ঢাকা ও নারায়ণগঞ্জ জেলায়; আব্দুল করিম কুমিল্ল, নারায়ণগঞ্জ ও ঢাকা জেলায়; আলমগীর সিলেট, মৌলভিবাজার এবং হবিগঞ্জ জেলায়; আঙ্গুর মিয়া কুমিল্লা, মৌলভিবাজার এবং হবিগঞ্জ জেলায় সরকার নির্ধারিত বিদেশগামীদের করোনা টেস্ট হাসপাতালগুলোতে সকাল ৭টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত বিদেশগামী যাত্রী ছদ্মবেশে অবস্থান করে কৗশলে অন্যান্য সাধারণ যাত্রীদেও মোবাইল নম্বরগুলো সংগ্রহ করতো।

বিদেশগামী যাত্রীদের নম্বরগুলো সংগ্রহ করে বেলাল ও সবুজের কাছে পাঠাতো। যাত্রীরা তাদের প্রকৃত করোনা টেস্টের ফল হাতে পাওয়ার আগেই বেলাল ও সবুজ সংশ্লিষ্ট হাসপাতালের করোনা বিভাগের ডাক্তার বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ পরিচয় দিয়ে ভুক্তভোগীদের নম্বরে কল দিয়ে করোনা টেস্টের ফল পজিটিভ আসছে বলে মিথ্যা তথ্য দিত। পরে পজিটিভ রেজাল্ট নেগেটিভ করে দেওয়ার কথা বলে ভুক্তভোগীর কাছ থেকে জন প্রতি মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে পাঁচ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত হাতিয়ে নিত।

     আরো দেখুন:

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  

You cannot copy content of this page