দেবীদ্বারের দামতীতে পুলিশের উপস্থিতিতে নৌকার অফিসে স্বতন্ত্র প্রার্থীর হামলা-ভাংচুর

নিজস্ব প্রতিবেদক।।
কুমিল্লার দেবিদ্বারে ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে উপজেলার ধামতী ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী জসিম উদ্দিনের নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা, ভাঙচুর এবং তার কর্মীদের কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। পুলিশের উপস্থিতিতে ‘আনারস’ প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান ইউপি নির্বাচন মহিউদ্দিন মিঠুর নেতৃত্বে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিসে ঢুকে নেতা-কর্মীদের উপর হামলা ও অফিস ভাংচুর করে তান্ডব চালানো হয়। রবিবার বিকালে কুমিল্লা নগরীর একটি রেস্তোরাঁয় সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন নৌকার ওই প্রার্থী মোঃ জসীম উদ্দিন । এসময় দলের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এ ঘটনার পর থেকে আওয়ামী লীগ ও বিদ্রোহী প্রার্থীর নেতাকর্মীদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে। প্রশাসন উভয় প্রার্থীকে আচরণ বিধি ভঙ্গের দায়ে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেছেন বলে জানা গেছে। সংঘর্ষের বিষয়ে দেবিদ্বার থানার ওসি আরিফুর রহমান জানান, ঘটনার বিষয়ে অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

গতকাল বিকেলে নগরীতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নৌকার প্রার্থী জসিম উদ্দিন অভিযোগ করেন, “ শনিবার রাত ৮টার দিকে ধামতী ইউনিয়নে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী মহিউদ্দিন মিঠুর (আনারস) নির্দেশে সাদেকুর রহমান সরকার, নেয়ামত উল্লাহ, শাহরিয়ার ইমন, কবির হোসেন, এরশাদুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে ১৫/২০ জনের একটি দল দেশিয় অস্ত্র নিয়ে নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাংচুরসহ কর্মীদের কুপিয়ে ও পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। আহতরা হলেন, ধামতী গ্রামের ইব্রাহিম খলিল, মনির হোসেন, ইমরান, শিল্পী আক্তার, রাজীব ও নুরুজ্জামান। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসলেও প্রকৃত হামলাকারীদের গ্রেফতার করেনি। পুলিশের উপস্থিতিতে নৌকার কর্মীদের উপর পুনরায় হামলা করে স্বতন্ত্র প্রার্থীর লোকজন। আহতরা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ বিষয়ে দেবিদ্বার থানায় অভিযোগ করেছেন বলে জানান তিনি। এ ঘটনায় ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা মো. ওমর ফারুক বাদী হয়ে সাদেকুর রহমান সরকারসহ ১২ জনের নাম উল্লেখ করে দেবিদ্বার থানায় রবিবার দুপুরে অভিযোগ দাখিল করলেও সন্ধ্যা পর্যন্ত থানায় মামলা রেকর্ড হয়নি।”

নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ জসীম উদ্দিন আরও জানান, “রাত সাড়ে ১১টায় হামলা চলাকালে পরবর্তীতে রাত সাড়ে ১১টায় মিঠু ও তার ক্যাডার বাহিনীসহ দেবীদ্বার থানার সহকারী উপ- পরিদর্শক (এ,এস,আই) মোঃ আনোয়ারের নেতৃত্বে পুনরায় আমার নির্বাচনী কার্যালয়ে হামলা চালায়। এসময় এ,এস,আই আনোয়ার রাম দা’ হাতে অফিস ভাংচুর ও আমাকে লাঞ্ছিত করাসহ আমার সমর্থকদের বেধরক পিটিয়ে বেশ ক’জনকে আহত এবং একজন সমর্থককে ধরে নিয়ে যায়। এ,এস,আই আনোয়ার জননেত্রী শেখ হাসিনা ছবি সম্বলিত আমার পোষ্টারে লাথিমারে এবং আমাকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে মারতে উদ্যত হয়, আমি সম্মান ও প্রাণ ভয়ে দৌড়ে আত্মরক্ষা করি।”
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শফিকুল ইসলাম সরকার, সাধারণ সম্পাদক রমিজ উদ্দিন, সাংগঠনিক সম্পাদক তৌহিদুর রহমানসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

এ বিষয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী মহিউদ্দিন মিঠু জানান, “ আমি ও সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ সদেকুর রহমান সরকারসহ ৩জন শনিবার রাত ৯টায় দেবীদ্বার সদর থেকে আসার পথে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীর বাড়ি সংলগ্নে আমার সমর্থকদের প্রতিষ্ঠিত আনারস প্রতীকের অফিস কার্যালয়ে চা’ খাওয়ার জন্য ডেকে বসায়, এসময় নৌকা সমর্থকরা টের পেয়ে আমার উপর হামলা করতে চড়াও হয়, নিরাপত্তার স্বার্থে এ ইউনিয়নের বিট পুলিশ কর্মকর্তা এ,এস,আই আনোয়ার হোসেনকে আমাকে উদ্ধারে আহবান জানাই। এসময় এ,এস,আই আনোয়ার হোসেন একদল পুলিশ নিয়ে আমাদের উদ্ধার করেন।”

এদিকে,পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শনিবার রাতেই নৌকা প্রতীকের সমর্থক দুলাল ও আনারস প্রতীকের সমর্থক রুবেল আহমেদকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে তাদের ভ্রাম্যমান আদালতে হাজির করলে ভ্রাম্যমান আদালতের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ও দেবীদ্বার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ আশিক-উন-নবী তালুকদার রাত ৮টার পর নির্বাচনী কার্যালয় খোলা রাখায় নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গের দায়ে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ জসিম উদ্দিনকে ৫০ হাজার ও রাতে সংঘবদ্ধ হয়ে নির্বাচনী প্রচারনাকালে সাংঘর্ষিক পরিস্থিতির জন্য আনারস প্রতীকের মোঃ মহিউদ্দিন মিঠুকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করে আটক দু’জনকে ছেড়ে দিয়েছেন।

     আরো দেখুন:

পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  

You cannot copy content of this page